থানা হেফাজতে যুবকের আত্মহত্যা, স্বজনদের বিক্ষোভ

Spread the love

প্রেস বিজ্ঞপ্তি

 মানবাধিকার সংস্কৃতি ফাউন্ডেশান (এমএসএফ) এর ক্ষোভ ও গভীর উদ্বেগ

ঢাকার রামপুরা টিভি সেন্টারের পাশে ইউনিলিভারের পিউরইট নামের বানিজ্যিক প্রতিষ্ঠানে কর্মরত শ্রমিক সুমন শেখকে একই প্রতিষ্ঠানে টাকা চুরির অভিযোগে শুক্রবার বিকেলে পুলিশ তাকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে। পরবর্তীতে থানা হাজতে সুমনের মৃত্যু হয়। পুলিশের দাবি সুমন তার পরনে থাকা ট্রাউজার লোহার গ্রিলের সঙ্গে বেঁধে গলায় ফাঁস নিয়ে মারা গেছে। অপরদিকে সুমনের স্ত্রী জান্নাত আরার দাবি, থানা হাজতে নির্যাতনের সময় সুমনের মৃত্যু হয়েছে। পুলিশী হেফাজতে সুমন শেখর মৃত্যুর ঘটনায় মানবাধিকার সংস্কৃতি ফাউন্ডেশান (এমএসএফ) ক্ষোভ ও গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করছে। পাশাপাশি ঘটনাটির নিরপেক্ষ ও সুষ্ঠূ তদন্ত নিশ্চিত করে অবহেলা বা নির্যাতনমূলক আচরণ এর উপাদান থেকে থাকলে জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়ার জোর দাবি জানাচ্ছে।

সংবাদসূত্রে জানা যায়, ঢাকার রামপুরা টিভি সেন্টারের পাশে ইউনিলিভারের পিউরইট নামের বানিজ্যিক প্রতিষ্ঠানে ৫৩ লাখ টাকা চুরি হলে ১৫ আগস্ট হাতিরঝিল থানায় মামলা হয়। মামলায় আল আমিন, সোহেল রানা ও অনিক হোসেন নামের তিনজনকে গ্রেপ্তারের পর তাদের দেওয়া ও অফিসের সিসিটিভি ফুটেজ দেখে উক্ত প্রতিষ্ঠানে কর্মরত শ্রমিক সুমন শেখকে চিহ্নিত করা হয়। তারই প্রেক্ষিতে শুক্রবার বিকেলে হাতিরঝিল থানা পুলিশ সুমনকে গ্রেফতার করে। ডিএমপি তেজগাঁও বিভাগের ডিসি এইচ এম আজিমুল হক সাংবাদিকদের জানান, ভোররাত ৩টা ৩২মিনিটে সুমন তার পরনে থাকা ট্রাউজার দিয়ে গলায় ফাঁস দেন। যা সিসিটিভি ফুটেজে দেখা গেছে। তিনি আরো জানান, ঘটনার রাতে থানায় থাকা ডিউটি অফিসার হেমায়েত হোসেন ও হাজতের প্রহরী মো. জাকারিয়াকে দায়িত্বে অবহেলার অভিযোগে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। কিন্তু সুমনের স্ত্রী জান্নাত আরার দাবি, পুলিশ তাকে আটক পর থানায় নিয়ে আনার সময় মারধর করেছে। এরপর থানা হাজতে নির্যাতনের সময় সুমনের মৃত্যু হয়। এমন কি রাতে থানায় দেখা করতে গেলে অকথ্য ভাষায় গালাগালি করে বের করে দিয়েছে। সুমনের হত্যার অভিযোগ তুলে শনিবার বিকেলে বিক্ষুব্ধ স্বজনরা থানার সামনে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ করেন।এদিকে মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) গোয়েন্দা বিভাগের (ডিবি) হেফাজতে থাকা সিদ্দিক আহাম্মেদ (৬২) ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে মারা যান। ১৬ আগষ্ট, ২০২২ তারিখে ডিবি পুলিশ রাজধানীর রমনা এলাকা থেকে এক হাজার ইয়াবাসহ সিদ্দিককে গ্রেফতার করে। এ ঘটনায় রমনা থানায় তাঁর বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা করে ডিবি। পরদিন বুধবার পেটের ব্যথায় অসুস্থ হয়ে পড়লে রাত ৮টা ২২ মিনিটে সিদ্দিককে হাসপাতালের মেডিসিন ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়। রাত ৯টার দিকে সেখানে তাঁর মৃত্যু হয়।মানবাধিকার সংস্কৃতি ফাউন্ডেশন (এমএসএফ) মনে করে, হেফাজতে যে কোন ব্যক্তির সুরক্ষা নিশ্চিত করা পুলিশের আইনি দায়িত্ব। পুলিশ হেফাজতে গ্রেফতারকৃত ব্যক্তির মৃত্যু অবশ্যই গুরুতর ঘটনা তাই এর পূর্ণ সুষ্ঠূ তদন্ত হওয়া উচিত। পুলিশের বিরুদ্ধে আনীত নির্যাতনের অভিযোগ ও হেফাজতে মৃত্যুর বিষয় দুটি অনাকাঙ্ক্ষিত ‍ও অনভিপ্রেত যা কখনোই গ্রহনযোগ্য হতে পারে না। ফলে মৃত্যু যে ভাবেই হোক না কেনো বিষয় দুটি গুরুত্ব দিয়ে প্রকৃত ঘটনা উদঘাটনে অনতিবিলম্বে নিরপেক্ষ ও সুষ্ঠূ তদন্ত নিশ্চিত করে জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানাচ্ছে।

Please follow and like us:
Pin Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this:

Website Design, Developed & Hosted by ALL IT BD