গুরুদাসপুরে আগুনে পুড়ে ছাই হোল ৯ পরিবারের ১১ টি ঘর

অগ্নিদগ্ধ হয়ে মারাগেছেন শতবর্ষী বৃদ্ধা

আবুল কালাম আজাদ: নাটোরের গুরুদাসপুর উপজেলার নাজিরপুর ইউনিয়নের আগপুরুলিয়া গ্রামে আগুনে পুড়ে ছাই হোল ৯ পরিবারের বসত বাড়ির ১১ টি ঘর  এবং মুল্যবান কাগজপত্র সহ আসবাবপত্র। আগুনে দগ্ধ হয়ে  মারা গেছেন শতবর্ষী বৃদ্ধা গুলজান বেগম (১০৫)। ১৫ এপ্রিল শুক্রবার বিকেল  ৩টার দিকে পুরুলিয়া বাজার সংলগ্ন খড় ব্যবসায়ী বক্কার আলীর খড়ের পালা থেকে এ অগ্নিকান্ড ঘটে।

খবর পেয়ে গুরুদাসপুর, বনপাড়া ও নাটোরের ফায়ার সার্ভিস ইউনিটের কর্মীরা আগুন নিয়ন্ত্রণ নিয়ে আসেন। এতে প্রায় অর্ধ কোটি টাকার টাকার সম্পদ পুড়ে ছাই হয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে জানা গেছে। নগদ টাকা, আসবাবপত্র,জমির কাগজপত্র, স্বর্নের গহনা, ফসলাদিসহ ঘরে থাকা সমস্ত জিনিসপত্র পুড়ে ছাই হয়ে গেছ।এলাকাবাসী জানান, শুক্রবার  ৩টার দিকে বৈশাখের প্রচন্ড তপ্ত অগ্নিঝরা বিকালে গোখদ্য খড়  ব্যবসায়ি  আবু বক্কারের খড়ের পালা থেকে অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটে। এতে হাকিম আলী, কলিমদ্দিন, ছবের উদ্দিন, সবুজ আলী, জরিপ আলী, আবু বক্কার, জব্বার আলী, মোহাম্মদ আলী, ছলিম আলীর  ৯ পরিবারের ১১টি ঘর পুড়ে ছাই হয়ে যায়। বক্কারের ধানের খড়ের পালা ও বাড়ি থেকে আগুনের সূত্রপাত হয় স্থানিয়রা জানান । মুহূর্তেই আগুন পাশের আরও ৯টি ঘরে ছড়িয়ে পড়ে। স্থানীয়রা আগুন নেভানোর চেষ্টায় ব্যর্থ হলে গুরুদাসপুর ফায়ার সার্ভিসে খবর দেওয়া হয়। ততক্ষণে আগুনে  ১১টি  ঘর পুড়ে যায়। এতে গুলজান বেগম (১০৫) আগুনে পুড়ে ঘরের মধ্যেই মারা যান।নাটোর জেলাপ্রশাসক শামীম আহমেদ,গুরুদাসপুর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. আবু রাসেল, গুরুদাসপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. আব্দুল মতিন,ইউপি চেয়ারম্যান মো. আইয়ুব আলী ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।গুরুদাসপুর ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন অফিসার শহিদুল ইসলাম বলেন, খবর পাওয়া মাত্রই ফায়ার সার্ভিসের তিনটি ইউনিটের কর্মীরা ঘটনাস্থলে পৌঁছে প্রায় এক ঘণ্টা চেষ্টা চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রনে নিয়ে আসে ।#

Please follow and like us:
Pin Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this:

Website Design, Developed & Hosted by ALL IT BD