ভাঙ্গুড়ায় নষ্ট হচ্ছে রেল লাইণ

ভাঙ্গুড়া(পাবনা)প্রতিনিধি: পাবনার ভাঙ্গুড়ায় এক কিলোমিটার রেললাইন মাটির নিচে মরিচা ধরে নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। এর মধ্যে ৩০০ মিটার রেললাইন তিন লেনবিশিষ্ট। এই লাইনে দুই যুগ ধরে ট্রেন চলাচল বন্ধ রয়েছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ব্রিটিশ আমলে ঈশ্বরদী-সিরাজগঞ্জ রেললাইনের ভাঙ্গুড়া স্টেশন থেকে খাদ্যগুদাম পর্যন্ত এক কিলোমিটার রেললাইন স্থাপিত হয়। এই লাইনে ভাঙ্গুড়া বাজারের মধ্যে শতাধিক ফুট প্রশস্ত প্রায় ৩০০ মিটার লাইন তিন লেনবিশিষ্ট। এই রেললাইন দিয়ে উত্তরাঞ্চলের বিভিন্ন এলাকায় খাদ্যগুদামের মালপত্র আনা-নেওয়ার জন্য ট্রেন যাতায়াত করত। দুই যুগ আগে খাদ্যগুদামে ট্রাকে মালপত্র পরিবহন শুরু হলে এই লাইনে ট্রেন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। এরপর ধীরে ধীরে ভাঙ্গুড়া বাজারের মধ্যে রেললাইনের বেশির ভাগ জায়গা এলাকার প্রভাবশালীরা দখলে নেয়। লাইনের মাঝখান দিয়ে সড়ক নির্মাণ করা হয়। এতে সড়ক ও স্থাপনার নিচে পড়ে যায় রেলের কোটি কোটি টাকার লোহার স্লিপার ও লাইন। এ ছাড়া অবশিষ্ট লাইনের ওপর জায়গা বাস্তুহারা পরিবার বসতি স্থাপন করে।সম্প্রতি সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, দীর্ঘদিন অব্যবহৃত থাকায় রেললাইনের স্লিপার চুরি ও নষ্ট হয়ে গেছে। লোহায় মরিচা ধরেছে। পরিত্যক্ত রেললাইনের মাঝখানে সামান্য জায়গা রেখে দখল করে বাণিজ্যিক ও আবাসিক ভবন তুলেছে এলাকার প্রভাবশালীরা। এই জায়গা দিয়ে পাকা সড়ক নির্মাণ করা হয়েছে। কিছু কিছু স্থানে বসানো হয়েছে অস্থায়ী চায়ের দোকান। জীবিকা নির্বাহ করছে অল্প আয়ের মানুষরা। অনেকে দখল করা রেলের জায়গায় অবৈধভাবে কেনাবেচা করছে।

স্থানীয় ব্যবসায়ী আব্দুল মালেক বলেন, মালবাহী ট্রেন চলাচল বন্ধের পরে এই লাইন কোনো কাজে আসছে না। কর্তৃপক্ষ এই লাইন তুলে নিয়ে অন্য কোথাও স্থাপন করতে পারত; কিন্তু তাদের অবহেলায় লাইনের কাঠ ও লোহার সরঞ্জাম নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। সচেতন নাগরিক হিসেবে সরকারি সম্পদ নষ্ট কারোর কাম্য নয়।রেলওয়ে পাকশী বিভাগীয় প্রকৌশলী-২ ( ডিইএন-২) বীরবল মণ্ডল বলেন, ‘সরেজমিনে কর্মকর্তা পাঠিয়ে রেললাইনের সব তথ্য সংগ্রহ করা হবে। এরপর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

 

Please follow and like us:
Pin Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this:

Website Design, Developed & Hosted by ALL IT BD